রাজবাড়ীতে ইলিশ ধরার দায়ে ১৬ জেলের কারাদণ্ড

রাজবাড়ী জেলা সদরের পদ্মা নদীতে সরকারি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ইলিশ মাছ ধরার অপরাধে ১৬ জন জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. তৌহিদুল ইসলাম ও শাহ মো. সজিব ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ১১জন জেলেকে ১৫ দিন করে এবং অপর এক ভ্রাম্যমাণ আদালতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাবরিনা শারমিন ও দিলসাদ জাহান পাঁচজন জেলেকে ১০ দিন করে কারাদণ্ড দেন।
অভিযানে জেলা মৎস্য কর্মকতা মো. মজিনুর রহমান, সদর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিজন কুমার নন্দী, ২৪ আনসার ব্যাটালিয়নের নায়েক মো. জালাল উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
অভিযান সূত্রে জানা গেছে, মা ইলিশ রক্ষায় জেলা প্রশাসন ও মৎস্য অধিদফতর যৌথভাবে সদর উপজেলার পদ্মা নদীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় পৃথকভাবে ১৬ জন জেলেকে আটক, ১৪ হাজার মিটার জাল ও ৬০ কেজি ইলিশ মাছ জব্দ করা হয়। জব্দকৃত জাল আগুনে পোড়ানো হয় এবং মাছগুলো এতিমখানায় দেয়া হয়। পড়ে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আটক ১১ জেলেকে ১৫ দিন ও অপর পাঁচজনকে ১০ দিন করে করাদণ্ড দেয়া হয়েছে।
১৫ দিন করে কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- শরীফ, শহিদুল, আব্দুস সাত্তার, মোবারক, আব্দুস সালাম, জহির উদ্দিন, বাবর আলী শেখ, রোকনুজ্জামান, সজীব শেখ, কোরবান শেখ ও জাকির মণ্ডল।
১০ দিন করে কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হহলেন- সফিক মণ্ডল, কালাম মণ্ডল, সোহাগ মণ্ডল ও মমিন মণ্ডল, রফিক মণ্ডল।
রাজবাড়ী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মজিনুর রহমান জানান, মা ইলিশ রক্ষায় সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক নদীতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আজ ১০ম দিনে জেলা প্রশাসন ও মৎস্য অধিদফরের যৌথ অভিযানে ১৬ জন জেলেকে আটক করে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এখন পর্যন্ত মোট ১৪৫ জন জেলেকে আটকের পর ১১৫ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে জেল ও ৩০ জনকে জরিমানা করা হয়েছে।

0 মন্তব্য(গুলি)

Write Down Your Responses

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...