খালেদার দুই মামলায় পরবর্তী শুনানি ১৬ ফেব্রুয়ারি

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অরফানেজ এবং চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় আত্মপক্ষ শুনানি পিছিয়ে আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেছে আদালত।

বৃহস্পতিবার ঢাকার তিন নম্বর বিশেষ জজ আবু আহমেদ জমাদার সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে সময় আবেদন মঞ্জুর করে এ তারিখ ধার্য করেন।
এদিন চ্যারিটেবল মামলায় পুনরায় সব সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ এবং অরফানেজ মামলায় বিচারকের প্রতি অনাস্থার বিষয়ে উচ্চ আদালতে আবেদন বিচারাধীন থাকায় সময় আবেদন করা হয়।
একই সঙ্গে খালেদা জিয়া হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় আদালতে হাজির হতে পারেনি বলেও সময় প্রার্থনা করেন।
এর আগে গত ২ ফেব্রুয়ারি অরফানেজ মামলায় বিচারকের প্রতি অনাস্থা জানান খালেদা জিয়া। গত বুধবার ওই অনাস্থার বিষয়ে হাইকোর্টে আবেদনও করা হয়েছে।
২০১১ সালের ৮ আগস্ট জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাটি দায়ের করে দুদক। এ মামলায় ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে চার্জশিট দাখিল করে দুদক। এ মামলায় তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করা হয়।
মামলাটিতে বিএনপি নেতা সচিব হারিছ চৌধুরী এবং তার তৎকালীন একান্ত সচিব বর্তমানে বিআইডব্লিউটিএ এর নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান আসামি।
অন্যদিকে এতিমদের জন্য বিদেশ থেকে আসা দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগে জিয়া অরফানেজ মামলাটি দায়ের করে দুদক। ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় এই মামলাটি দায়ের করা হয়।
২০০৯ সালের ৫ আগস্ট দুদক আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।
অভিযোগপত্রে খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমান, সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল ও ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে আসামি করা হয়।

0 মন্তব্য(গুলি)

Write Down Your Responses

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...