না থেকেও ছিলেন সালমান-শাবনূর

নব্বই দশকের জনপ্রিয় জুটি নাইম-শাবনাজের আমন্ত্রণে গতকাল শনিবার (১৯ নভেম্বর) নাইম-শাবনাজের আয়োজনে গুলশানের এমানুয়েলস ব্যানকুট হলে বসেছিলো তারার হাট। উপলক্ষ ঢাকাই চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি এহতেশাম পরিচালিত নাইম-শাবনাজ জুটির প্রথম ছবি ‘চাঁদনী’ মুক্তির ২৫ বছর অর্থাৎ রজত জয়ন্তি উদযাপন।

১৯৯১ সালের ৪ অক্টোবর ‘চাঁদনী’ ছবির মাধ্যমে এই তারকা জুটির অভিষেক হয় চলচ্চিত্রে। সে হিসেবে ৪ অক্টোবর ছবিটি মুক্তির ২৫ বছর অতিক্রম করেছে। তাকে ঘিরেই ‘চাঁদনী’ সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে চলচ্চিত্র, নাটক ও সংগীতাঙ্গনের নানা প্রজন্মের তারকারা এসেছিলেন নাইম-শাবনাজ দম্পতিকে শুভেচ্ছা জানাতে।

চিত্রপরিচালক আজিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। এছাড়াও অনুষ্ঠান আলো করে ছিলেন ইলিয়াস কাঞ্চন, ওমর সানি, ফেরদৌস, আমিন খান, রিয়াজ, বাপ্পারাজ, সম্রাট, জায়েদ খান, ইমন, আরেফিন শুভ, কবরী, অঞ্জনা, চম্পা, অরুণা বিশ্বাস, শিল্পী, মৌসুমী, কেয়া, নিপুন, পপি, পূর্নিমা, বিদ্যা সিনহা মিমসহ শতাধিক তারকা।

তবে স্বশরীরে অনুষ্ঠানে হাজির না হয়েও উপস্থিত ছিলেন ঢাকাই ছবির অমর নায়ক সালমান শাহ ও শাবনূর। এই জুটিকে বাদ দিয়ে যে নব্বই দশকের চলচ্চিত্র হয় না তারই প্রমাণ যেন নতুন করে আরো একবার হয়ে গেল শনিবার রাতে। বিশেষ করে সালমান। তিনি ফিরে এসেছিলেন প্রিয় মানুষদের আড্ডায়, ফিরে এসেছিলেন সহকর্মীদের স্মৃতিচারণে।

মঞ্চে তখন নাইম-শাবনাজ দম্পতি ‘চাঁদনী’ সন্ধ্যায় উপস্থিত থাকার জন্য অতিথিদের ধন্যবাদ জানিয়ে নিজেদের অনুভূতি প্রকাশ করছেন। এক ফাঁকে তারা ডেকে নেন ঢাকাই ছবিতে আরেক জনপ্রিয় জুটি এবং সুখী দম্পতি ওমর সানি ও মৌসুমীকে। মঞ্চে নিয়ে শাবনাজ আবেগ আপ্লুত কণ্ঠে বলেন, ‘এ আমার পরম সৌভাগ্য যে একদিন মৌসুমীকে তার প্রথম ছবি ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’র জন্য শুভকামনা জানাতে আমি ও নাইম একসঙ্গে গিয়েছিলাম সেই ছবির মহরতে। আজ সে এসেছে আমার এবং নাইমের প্রথম ছবির রজত জয়ন্তিতে শুভেচ্ছা জানাতে। পার্থক্য কেবল, তখন মৌসুমির সঙ্গে ছিলো তার প্রথম ছবির নায়ক সালমান শাহ, আর এখন তার সঙ্গে আছে বাস্তব জীবনের নায়ক ওমর সানি।’

শাবনাজ দুষ্টুমি করে বলেন, ‘সালমান শাহ ও মৌসুমির সেই ছবি সাড়া ফেলে দিয়েছিলো। তারপর বেশ কিছু ছবিতে তারা অভিনয় করে ব্যবসা সফল হয়েছিলো। একটা সময় ওমর সানির সঙ্গে মৌসুমির জুটি হয় এবং তারাও আমাদের মতো প্রেমে পড়ে গিয়ে বিয়ে করে বসে। আপনাদের দোয়ায়, এখনো তারা সুখী দম্পতি।’

এক পর্যায়ে ওমর সানি বলেন, ‘নাইম-শাবনাজ আমাদের কাছে আইডল। এই জুটি নব্বই দশকে একটা নতুন ধারার জন্ম দিয়েছিলো। তারপর সেই ধারায় অনেক তারকার উত্থান হয়েছে। নাইম-শাবনাজ না থাকলে আমি আজকের ওমর সানি হতাম না, মৌসুমি হতো না, সালমান হতো না, শাবনূর হতো না।’

এ সময় সালমান স্মরণে আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন সানি। তিনি বলেন, ‘সালমানকে আজ খুব মনে পড়ছে। সালমান তুই যেখানেই থাকিস ভাই, আল্লাহ তোর মঙ্গল নিশ্চিত করুন, তোকে ভালো রাখুক। নব্বই দশকের সেই সময়টাতে আমরা বেশ কিছু নতুন মুখ নতুন করে একটা যাত্রা শুরু করেছিলাম। সেখানে আমাদের নেতৃত্বে ছিলো নাইম-শাবনাজ জুটি।’

এক পর্যায়ে মজা করে ওমর সানি বলেন, ‘নাইম আমার খুব কাছের মানুষ। ওর সঙ্গে আমার অনেক মিল। নাইম রোমান্টিক হিরো ছিলো, আমিও তাই ছিলাম। ও নায়িকা বিয়ে করেছে, আমিও করেছি। ও সুখে আছে, আমিও আল্লাহর রহমতে সুখে আছি। ওর দুটো সন্তান, আমারো দুটি সন্তান। পার্থক্য কেবল নাইমের দুটো মেয়ে আর আমার একটি মেয়ে ও একটি ছেলে। আপনারা আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

এদিকে আনুষ্ঠানিকতা শেষে ফটোসেশন পর্বে জাগো নিউজের সঙ্গে আলাপকালে শাবনাজ স্মৃতিচারণ করেন সালমান শাহকে নিয়ে। তিনি বলেন, ‘সালমান তখন জনপ্রিয়তার তুঙ্গে। তাকে নিয়ে পরিচালকরা কাজ করতে উন্মুখ হয়ে থাকতেন। নায়িকারাও চাইতেন সালমানের বিপরীতে কাজ করতে। সালমান-শাবনূর জুটি তখন সুপারহিট। কিন্তু তারপরও সালমান বেশ কয়েকজন নায়িকার সঙ্গে কাজ করেছিলো। আমিও কিছু ছবিতে তার বিপরীতে অভিনয় করেছিলাম। সেগুলো হলো ‘মায়ের অধিকার’, ‘আশা ভালোবাসা’, ‘আঞ্জুমান’। ছবিগুলো হিট করেছিলো। আসলে সালমান ছিলো দারুণ একজন অভিনেতা। ওর অকালে চলে যাওয়াটা চলচ্চিত্রের জন্য বিরাট ক্ষতি হয়ে রইলো। আজকের এই চমৎকার দিনটিতে তাকে অবশ্যই মিস করছি। আরো অনেকেই আজ আসতে পারেনি। তাদেরকেও মিস করছি।’

অনুষ্ঠানে সালমানের মতো সবার মুখে ছিলেন শাবনূরও। অনেকেই চোখ বড় করে এদিক-ওদিক তাকিয়ে খুঁজেছেন তারকাদের ভিড়ে শাবনূরকে দেখা যায় কি না। খুঁজে না পেয়ে আফসোসও করেছেন অনেকে। শাবনাজ, শিল্পী, মৌসুমি, পপি, পূর্ণিমা, কেয়ার নামগুলো নিতে গিয়ে শাবনূরের অভাব নামের ধারাবাহিকতায় একটা ছন্দ পতন ঘটায় বৈকি!

গতকালের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এটিএম শামসুজ্জামান, মতিন রহমান, সাদেক বাচ্চু, মিশা সওদাগর, নকীব খান, আফসানা মিমি, তারিন, মৌসুমী নাগ, দীপা খন্দকার, তানভীন সুইটি, নওশিন, হিল্লোল, ফারহানা নিশো, দিঠি আনোয়ার, প্রতীক হাসানসহ প্রায় দেড় শতাধিক তারকা। উপস্থিত ছিলেন নাইম-শাবনাজ ও এহতেশামের পরিবারের সদস্যরাও। অনুষ্ঠানের নতুন মাত্রা যোগ করে উপস্থিত ছিলেন দেশের বিভিন্ন মাধ্যমের বিনোদন সাংবাদিকেরাও। ।

0 মন্তব্য(গুলি)

Write Down Your Responses

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...