মরক্কোর পথে প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘কনফারেন্স অব দ্য পার্টিস (কপ-২২)’এর উচ্চ পর্যায়ের দুই কর্মসূচিতে যোগ দিতে তিনদিনের সফরে আজ (সোমবার) সকালে মরক্কোর মারাক্কেশ-এর উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করছেন। ইউএনএফসিসি (কপ-২২) বৈশ্বিক জলবায়ু শীর্ষ সম্মেলন হিসেবে সুপরিচিত।

মরক্কোর সাবেক রাজকীয় শহর মারাক্কেশে ইউএনএফসিসি-এর ২২তম এ শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট (বিজি- ১০১৯) প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে মারাক্কেশের উদ্দেশ্যে ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে।
বিমানটির আজ স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে মারাক্কেশের মেনারা বিমানবন্দরে অবতরনের কথা রয়েছে।

বিমানবন্দর থেকে প্রধানমন্ত্রীকে মোটরশোভাযাত্রা সহকারে হোটেল লা মামৌনিয়াতে নেয়া হবে। সফরকালে তিনি এ হোটেলেই অবস্থান করবেন।

শেখ হাসিনা ১৫ নভেম্বর ‘কনফারেন্স অব দ্য পার্টিস (কপ-২২)’-এর উচ্চ পর্যায়ের সভায় জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশের অবস্থান তুলে ধরবেন এবং জাতীয় ও যৌথভাবে এই বিরাট চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কাজের গতি ত্বরান্বিত করার জন্য বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি আহবান জানাবেন।

একইদিন অন্যান্য দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও মরক্কোর বাদশাহ ৬ষ্ঠ মোহাম্মদের দেওয়া ভোজসভায় যোগদান করবেন। তিনদিনের সফর শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগামী ১৬ নভেম্বর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

মরক্কোর মারাক্কেশ-এর বাব ইগলিতে ৭ নভেম্বর শুরু হওয়া ‘কনফারেন্স অব দ্য পার্টিস (কপ-২২)’ হচ্ছে গত বছরের ডিসেম্বরে ‘কপ-২১’-এ ঐতিহাসিক প্যারিস চুক্তি গৃহীত হওয়ার পর এ ধরনের প্রথম সভা।

বাব ইগলি কনফারেন্স ভেন্যুতে মরক্কোর বাদশাহ ৬ষ্ঠ মোহাম্মেদ, জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন ও ইউনিসেফের এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারী পেট্রিসিয়া এসপাইনোসা তাকে অভ্যর্থনা জানাবেন।

গত ৭ নভেম্বর শুরু হওয়া চলবে এই সম্মেলন ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত। কপ-২১-এ গৃহীত ঐতিহাসিক চুক্তির পর এটাই হচ্ছে প্রথম সম্মেলন। গত বছর ডিসেম্বরে প্যারিসে কপ-২১ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

এ পর্যন্ত ১৯৫ দেশ এতে অনুসমর্থন দিয়েছে এবং বৈশ্বিক জলবায়ুর উষ্ণতা হ্রাসে ঐতিহাসিক প্যারিস চুক্তি অনুযায়ি কপ-২২ এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার সম্পাদনের জন্য কার্যবিধির নকশা প্রণয়ন করা বলে আশা করা হচ্ছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী, পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও বন এবং পরিবেশ উপমন্ত্রী আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গি হয়েছেন।

0 মন্তব্য(গুলি)

Write Down Your Responses

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...