খরচ কমছে চাঁদে ভ্রমণে


পৃথিবীর কক্ষপথ ছেড়ে চাঁদে যাওয়ার অনুমতি পাওয়া প্রথম মার্কিন কোম্পানি মুন এক্সপ্রেস মহাশূন্যে মানুষ পাঠাতে চায় সম্প্রতি ফক্স বিজনেস নেটওয়ার্ককে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে কোম্পানির সহ-প্রতিষ্ঠাতা এবং চেয়ারম্যান নবীন জেইন চাঁদ থেকে অর্থ উপার্জন করার পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন সেখানে তার কোম্পানি কম খরচে চাঁদে ভ্রমণের সুযোগ করে দেবে বলে তিনি উল্লেখ করেন

তিনি বলেন, এটা সহজ নয়, তবে ভালো ব্যবসা। চাঁদে যেতে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার খরচ হয়, তবে আমরা টার্গেট করেছি ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে মানুষকে মহাশূন্যে ভ্রমণে সুযোগ করে দেওয়ার।

নভীন জেইন বলেন, চাঁদে প্রথম অবতরণ এবং সেখানকার সবকিছু গুছিয়ে নিতে কোম্পানির খরচ হবে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। পরবর্তীতে প্রতি মিশনের জন্য খরচ পড়বে ১০ মিলিয়ন ডলার।

তিনি আরও বলেন, এটা শুধু বড় ব্যবসা নয়, চাঁদে আমরা ফিরিয়ে আনতে পারি হিলিয়ামের একটি আইসোটোপ হিলিয়াম 3, যার কোনো তেজস্ক্রিয় কার্যকলাপের ক্ষমতা নেই, যা প্রজন্মকে এখানে নিয়ে আসার জন্য এই গ্রহের শক্তি সরবরাহ করতে পারে। আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, চাঁদে পানি আছে, যেখানে রয়েছে হাইড্রোজেন এবং অক্সিজেন। এর মানে হল রকেটের জ্বালানি, আর এই জ্বালানিই হলো মানবজাতির জ্বালানি।

নিকট ভবিষ্যতে চাঁদে মানুষ বসবাস করবে বলেও তিনি মনে করেন।

0 মন্তব্য(গুলি)

Write Down Your Responses

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...