পরীর ‘রক্ত’,পেছানোর নেপথ্যে মাহি!


শীর্ষস্থানীয় প্রযোজনা সংস্থা জাজ মাল্টিমিডিয়ার নতুন ছবিরক্তআসছে ঈদে মুক্তির কথা ছিল কিন্তু ছবিটি ঈদে আসছে না হঠাৎ করেই কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত, ‘রক্তনয়, ঈদে আসবেপ্রেম কি বুঝিনি ব্যাপারটাকে সাদামাটা চোখে সাধারণ ঘটনা মনে হলেও, কেউ কেউ খুঁজছেন ভিন্ন অর্থ কি সেটা! ব্যাপারটা চমকে ওঠার মতোই বিষয়টা হচ্ছে, জাজে আবার ফিরছেন মাহি সূত্র জানিয়েছে, মাহির প্রত্যাবর্তনের কারণেই পিছিয়ে গেছেরক্ত মুক্তি কারণ কি! জানা গেছে, জাজ কর্ণধার আবদুল আজিজের ছবির নায়িকাই শুধু মাহি ছিলেন না তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলেও ফিসফাসফিস হয়েছে কিন্তু মনোমালিন্যের কারণে মাহি জাজ ছেড়েছেন আর আজিজ সাহেব মাহিকে দেখিয়ে দেওয়ার জন্যই নতুন নতুন নায়িকা নিয়ে ছবি নির্মাণ করেছেন নুসরাত ফারিয়া, জলি এবং পরীমণির অন্তর্ভুক্তি নাকি সে কারণেই শুধু নতুন নতুন নায়িকাই এসেছেন, নায়ক নয় এখন বিষয় হচ্ছে, মাহি জাজে ফেরার জন্য আদাজল খেয়ে নেমেছেন আর এই অভিমান ভাঙানোর এই যুদ্ধে মাহি নাকি জয়ী হয়েছেন সুতরাং হিসাবটা এসে দাঁড়ায়মাহি আবার জাজে ফিরছেন তো পাটিগণিতের নিয়মে বাকি হিসাবটুকুর রেজাল্ট কী হবে? খুব সহজ মাহিকে দেখিয়ে দেওয়ার জন্য যেসব নায়িকাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল, তারা জাজ থেকে একে একে ঝরে পড়বেন

সব কিছু মিলিয়ে, ফিল্মপাড়ার মানুষের ধারণা, উড়ন্ত পরীর পাখা কাটতেইরক্তকে থামিয়ে দেওয়া হলো। কারণ পরী এই ছবির জন্য যেভাবে খেটেছেন, প্রস্তুতি নিয়েছেন তা সাধুবাদ পাওয়ার মতোই। একেবারে অন্যরকম এক পরীর ভেসে ওঠার কথা ছিল পর্দায়এই ঈদেই। সেটা আর হলো না। হলে কি হতো? হলে শাকিবের সঙ্গে পরীর যুদ্ধ হতো। কারণ ঈদে শাকিবেরবসগীরিমুক্তি পাবে। উল্লেখযোগ্য আর কোনো ছবি ছিল না। তাইরক্তএসে ভালো ব্যবসা করতে পারলেই পরীর নামের সঙ্গে সুপারস্টার সম্বোধন যুক্ত হতো। সেক্ষেত্রে পরী এগিয়ে যেতেন অনেকদূর।

সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যের বিষয়ে জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আবদুল আজিজের সঙ্গেও যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু তিনি তথ্যটিকে মিথ্যা বলে জানালেন। বলেন, ‘আমার কোনো ছবিতে মাহি আর অভিনয় করছেন না। যা শুনেছেন সবই গুজব।

আজিজ সাহেবেরগুজবকথার ওপর মানুষের আস্থা একটু কম। তিনি এর আগে যত বিষয়ে গুজব বলেছেন, পরবর্তীতে তা অনেক ক্ষেত্রেই বাস্তব হয়েছে। সুতরাং এখন দেখার অপেক্ষাগুজব কি সত্যিই গুজব, নাকি মিথ্যের যোগফল। জাজের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, সময়ের অভাবেরক্তশেষ করা যাবে না। তাই চলচ্চিত্র বোদ্ধাদের প্রশ্নতাহলে মালেক আফসারীকে বাদ দেওয়া হলো কেন?

মালেক আফসারী যখন ছবিটি শুরু করেন, তাকে বলা হয়েছিল, কোরবানির ঈদেরক্তমুক্তি দেওয়া হবে, দ্রুত ছবি শেষ করেন। কিন্তু নির্মাতা জানিয়েছিলেন, তিনি এত দ্রুত কাজ করতে পারবেন না। কারণে তাকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছিল ওয়াজেদ আলী সুমনকে। কিন্তু সুমন কি পারলেন, নাকি পারতে দেয়া হলো না? আরেকটি যুক্তি, ‘রক্ত পরিবর্তে যে ছবিকে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাজ, সেই ছবির কাজ তোরক্ত তুলনায় আরও বেশি পিছিয়ে। তাহলে সেটা কীভাবে মুক্তি দেওয়া হবে?

এবার আসা যাক পরীমণি প্রসঙ্গে। ইতিমধ্যেরক্তকে কেন্দ্র করে নিজের চাহিদা আকাশচুম্বী করে ফেলেছেন পরীমণি। প্রত্যেক সেলিব্রেটির ইচ্ছা থাকে ঈদের সময় ছবি মুক্তি পাবে। অথচ রক্ত ছবিটি পিছিয়ে দেওয়া হলো। এতে পরীমণি কী ভাবছেন? তিনি বলেন, ‘এটা ঠিক, ঈদের সময় দর্শক জোয়ার একটু বেশিই থাকে। তাছাড়া আমাকে কখনো প্রত্যক্ষভাবে বলা হয়নি ঈদে রক্ত মুক্তি পাচ্ছে। গণমাধ্যমে খবর দেখেছি এবারের ঈদে প্রায় ১৩০টি হলে মুক্তি পাবে এই ছবিটি।

ছাড়া টিজারেও দেখেছি। তবে এটাও সত্য, প্রোডাকশন হাউসই সিদ্ধান্ত নেবে ছবিটি কখন মুক্তি পাবে। এখানে অভিনয়শিল্পীদের তো কিছু করার নেই।

পরী আরও বলেন, ‘আমি এই পরিস্থিতিতে মর্মাহত নই। কারণ আগে এর থেকেও বাজে পরিস্থিতিতে আমি অভ্যস্ত হয়ে গেছি। রানা প্লাজার কথা মনে নেই? মুক্তির আগের রাতে হঠাৎ ছবিটির প্রদর্শনে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়। সে সময় তো পার করেই এসেছি। এত কিছু ভাবলে চলবে না। আমি অভিনয়ের মানুষ, অভিনয় নিয়েই মনোযোগী, অন্য কিছুতে না।

পরী যাই বলুক, রাজনীতি বলতে একটা বিষয় আছে। তা শুধু নেতা-নেত্রীর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, ফিল্মপাড়ায়ও উঁকি দেয়।

0 মন্তব্য(গুলি)

Write Down Your Responses

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...