হাসপাতালের কেবিনে এখন মোস্তাফিজ

কাঁধে সফল অস্ত্রোপচারের পর বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের পেসার মোস্তাফিজুর রহমানকে আনা হয়েছে হাসপাতালের কেবিনে।
অস্ত্রোপচারের পর আনুসঙ্গিকতা শেষ করে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে (বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে এগারটা) এই বাহাতি ক্রিকেট বোলারকে রিকোভারি রুম থেকে নিয়ে যাওয়া হয় কেবিনে।
লন্ডনের কেনসিংটন বুপা হাসপাতালে প্রখ্যাত অর্থোপেডিক সার্জন অ্যান্ড্রু ওয়ালেস স্থানীয় সময় বিকেল ৩টা ৪৫ মিনিট (বাংলাদেশ সময় রাত ৮টা ৪৫ মিনিট)  থেকে শুরু করেন অস্ত্রোপচার। অস্ত্রোপচারের সময় অপারেশন থিয়েটারে বিসিবি'র প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরীও উপস্থিত ছিলেন।
ঘণ্টাব্যাপী অপারেশন শেষে প্রায় পৌনে দু’ঘণ্টা মোস্তাফিজকে রিকোভারি রুমে রেখে পরে আনা হয়েছে কেবিনে। বৃহস্পতিবার রাতে হাসপাতালেই থাকবেন তিনি।
অস্ত্রোপচারের আগে টাইগার পেসারকে ফোন করে সাহস যোগান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় তিনি মোস্তাফিজের অস্ত্রোপচারের সর্বশেষ খবর জানতে ফোনে কথা বলেন হাসপাতালে উপস্থিত বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গেও।
প্রধানমন্ত্রী বোলিং বিস্ময় মোস্তাফিজকে সাহস যোগাতে বলেন, ভয় পেয়ো না, সুস্থ হয়ে শিগগিরই তুমি আবার ফিরে আসবে ক্রিকেট মাঠে।

মোস্তাফিজের প্রতি বিশেষ নজর রাখতে প্রধানমন্ত্রী বিসিবি প্রেসিডেন্টকেও পরামর্শ দেন তখন।
মোস্তাফিজের কাঁধে অস্ত্রোপচারের আগে লন্ডনে ছুটে যান বিসিবি সভাপতি পাপন। বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরীও রয়েছেন হাসপাতালে মোস্তাফিজের পাশে।
কাটার মাস্টার মোস্তাফিজকে সাহস যোগাতে বুপা হাসপাতাল প্রাঙ্গণে বিসিবি সভাপতি ও প্রধান চিকিৎসক ছাড়াও উপস্থিত রয়েছেন ব্রিটেনে বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার খোন্দকার মোহাম্মদ তালহা, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান শরীফ, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নঈমুদ্দিন রিয়াজ ও যুক্তরাজ্য যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জামাল খানসহ সাংবাদিকরা।
বাংলাদেশ ক্রিকেট কাউন্সিল ইউকে'র সভাপতি নঈমুদ্দিন রিয়াজ, সাধারণ সম্পাদক মোশতাক আলী বাবুল এবং কোষাধ্যক্ষ জামাল খানও সার্বক্ষণিক খোঁজ খবর রাখছেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মুস্তাফিজের। তারা এই বিশ্ব কাঁপানো বাহাতি বোলারের দ্রুত আরোগ্যের জন্য সবার দোয়া চেয়েছেন।
কাঁধের চোট সারাতে গত ০২ আগস্ট ম্যানচেস্টারের বিশেষজ্ঞ শল্য চিকিৎসক লেনার্ড ফ্রাঙ্কের শরণাপন্ন হয়েছিলেন টাইগার পেসার মোস্তাফিজুর রহমান। কিন্তু ফ্রাঙ্ক জানান, তিনি ২২ আগস্টের আগে মোস্তাফিজের কাঁধের চিকিৎসা চালাতে পারবেন না। ফলে অ্যান্ড্রু ওয়ালেসের শরণাপন্ন হন মোস্তাফিজ। গত ২৯ জুলাই মোস্তাফিজের কাঁধের চোট সারাতে অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দেন শল্য চিকিৎসক টনি কোচার।
অর্থোপেডিক সার্জন অ্যান্ড্রু ওয়ালেস ২০০৬ সালের ২৭ মার্চ লন্ডনের সেন্ট জন অ্যান্ড সেন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ভারতের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকারের কাঁধেও অস্ত্রোপচার করেছিলেন।

লন্ডনে যাওয়ার আগে বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী জানিয়েছিলেন, সব ঠিকঠাক থাকলে ৫/৬ মাসের মধ্যে মোস্তাফিজ মাঠে ফিরতে পারবেন।

,

0 মন্তব্য(গুলি)

Write Down Your Responses

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...