নেত্রকোনায় আক্রান্ত রোগীদের জন্য ২ চিকিৎসক নিয়োগ

নেত্রকোনার কলমাকান্দায় পাঁচজন মারা যাওয়া ব্যক্তির রোগ চিকেন পক্স বা জলবসন্ত বলে প্রাথমিকভাবে চিহ্নিত করেছেন ঢাকা থেকে আসা চিকিৎসক দলের সদস্যরা। আক্রান্ত রোগীদের আলামত সংগ্রহ করে ঢাকার রোগ তথ্য, রোগ নির্ণয় ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে নেয়া হয়েছে।

সঠিক রোগের নাম জানতে অপেক্ষা করতে হবে আরো দু’দিন। আর আক্রান্ত রোগীদের সার্বক্ষণিক তদারকির জন্য এলাকায় নিয়োগ দেয়া হয়েছে দু`জন চিকিৎসক। এলাকার চিকিৎসা কাজে নিয়োজিত সরকারি-বেসরকারি স্বাস্থ্যকর্মীরাদের রাখা হয়েছে অতিরিক্ত নজরদারিতে।

নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার জামশেন গ্রামে জলবসন্ত রোগে আক্রান্ত হয়ে গেল এক মাসে মারা গেছেন পাঁচজন। স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্য মতে আক্রান্ত হয়েছেন আশপাশের আরও চারটি গ্রামের মোট চল্লিশ জন।

কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন  জানান, নতুন করে আরও আক্রান্ত হয়েছেন কিনা তার খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে। আক্রান্ত রোগী আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করছেন তিনি।


ঢাকা থেকে বিশেষ মেডিকেল টিম আক্রান্ত রোগীদের পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করেছেন। রোগ তথ্য, রোগ নির্ণয় ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের ডা. রায়হান শরীফ জানান, রোগীদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা আলামত ল্যাবে নিয়ে দ্রুত পরীক্ষা করে রোগটির বিষয়ে বলা যাবে। তবে প্রাথমিকভাবে তার ধারণা এটি চিকেন পক্স বা জলবসন্ত।

কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার ফরহাদ হোসেন জানান, আক্রান্ত রোগীদের সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হচ্ছে। আর যাতে কেউ সংক্রমিত না হয়, সেজন্যও নজরদারি বাড়িয়ে স্থানীয়দের সচেতন করা হচ্ছে।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. বিজন কান্তি সরকার জানান, রোগীদের সার্বক্ষণিক তদারকির জন্য এলাকায় দু`জন চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। আক্রান্ত এলাকা থেকে চিকিৎসকরা রোগীদের নিয়মিত পরীক্ষা নিরীক্ষা করে ওষুধ সরবরাহ করা হচ্ছে। ঢাকা থেকে আসা চিকিৎসক প্রতিনিধি দলের রোগ নির্ণয়ের রিপোর্ট পেলে আনুষ্ঠানিকভাবে তা গণমাধ্যমকে জানানো হবে বলেও জানান তিনি।

,

0 মন্তব্য(গুলি)

Write Down Your Responses

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...