বিশ্ব মিডিয়ায় বাংলাদেশি বৃক্ষ-মানব

গাছের শিকড়ের মতো বড় বড় মাংসপিণ্ডের শ্বাসমূল গজিয়ে ওঠা বিরল রোগে আক্রান্ত খুলনার পাইকগাছার আবুল বাজনদার। দরিদ্র ভ্যানচালকের চার ছেলে চার মেয়ের মধ্যে ৬ষ্ঠ সন্তান আবুলের দু’হাতের তালুসহ দশটি আঙ্গুলেই অদ্ভুত ধরণের ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

দেশের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল এ নিয়ে `বিরল রোগে আক্রান্ত খুলনার আবুল ঢামেক বার্ন ইউনিটে``মরে গেলেও বেঁচে যেতাম` শিরোনামে দুটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। বিরল রোগে আক্রান্ত এই রিকশাচালককে নিয়ে এবার বিশ্বের প্রভাবশালী বেশ কিছু গণমাধ্যমে বাংলাদেশি বৃক্ষ-মানব (ট্রি-ম্যান) পরিচয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।

ব্রিটেনের প্রভাবশালী দৈনিক ডেইলি মেইল এক প্রতিবেদনের শিরোনাম করেছে `বৃক্ষে পরিণত হওয়া মানুষ : বিরল রোগে ভুগছেন একজন বাংলাদেশি যার হাত-পায়ে গাছের শ্বাসমূল গজিয়ে উঠছে`। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হাত পায়ে গাছের শ্বাসমূল গজিয়ে উঠা বাংলাদেশি এক বৃক্ষ-মানবকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। খুলনার ২৫ বছর বয়সী আবুল বাজানদার বিরল ইপিডারমোসিপ্লাসিয়া ভেরুসিফরমিস রোগে ভুগছেন। বিরল এই ত্বকের রোগে তিনি গত সাত বছর ধরে আক্রান্ত।

5057ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ডিএমসিএইচ) চিকিৎসকরা বাজানদারের চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে একটি বোর্ড গঠন করেছে। ডিএমসিএইচ`র বার্ন ইউনিটের প্রধান সমন্বয়ক শনিবার এ বিষয়টি নিশ্চত করেছেন।

ইন্দোনেশিয়ার সংবাদ মাধ্যম ট্রিবিউনএননিউজ এর বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, ২০০৮ সালের ৩০ জানুয়ারি ইন্দোনেশিয়ার বৃক্ষ-মানব দেদে কসওয়ারাকে শনাক্ত করেন চিকিৎসকরা। চলতি সপ্তাহেই মারা যান তিনি।  তবে তিনি বিরল এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যাননি বলে দেশটির গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে। ২০০৮ সালে ডিসকভারি চ্যানেলে দেদেকে নিয়ে একটি প্রোগ্রাম হয়। সেসময় দেদে বলেন, চিকিৎসকরা তার শরীর থেকে ৬ কিলোগ্রাম (কেজি) আঁচিল অপারেশন করে ফেলে দিয়েছেন।

`হাসপাতালে বৃক্ষ-মানব` শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে নিউজিল্যান্ডের প্রভাবশালী দৈনিক নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশি বৃক্ষ-মানব আবুল বাজনদারকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও চলতি সপ্তাহেই ইন্দোনেশিয়ায় বিরল এই রোগে আক্রান্ত কসওয়ারা দেদে নামে একজন মারা গেছেন। কয়েক বছর ধরে এই রোগে আক্রান্ত দেদেকে দেশটিতে সারকাসেও অংশ নিতে বাধ্য করা হতো।

ব্রিটিশ দৈনিক ডেইলি মিরর `হাতে বৃক্ষের শ্বাসমূল বিরল চর্ম রোগে আক্রান্ত বাংলাদেশি` শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, ১০ বছর বয়স থেকে খুলনার আবুল বাজানদার হিউম্যান পাপ্পিলোমা ভাইরাসে (এইচপিভি) ভুগছেন। এই রিকশা চালককে বৃক্ষ-মানব হিসেবে ডাকা হচ্ছে।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, পাপ্পিলোমা ভাইরাস মানুষের শরীরে একশ উপায়ে আক্রমণ করতে পারে। এর মধ্যে ৩০ শতাংশই যৌনাঙ্গে আক্রমণ করে থাকে। সব ধরনের এইচপিভি ভাইরাসের কারণে শরীরে আঁচিল হতে পারে।

এর আগে ডিএমসিএইচ`র বার্ন ইউনিটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, এ ধরনের অসুখ বাংলাদেশে এই প্রথম এবং গোটা বিশ্বে প্রবল। ইতিপূর্বে ২০০৭ ও ২০০৯ সালে মাত্র দু’জন এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার রেকর্ড রয়েছে। এদের একজন ইন্দোনেশিয়া ও অপরজন রোমানিয়ান। এ ধরণের রোগীকে ‘বৃক্ষ-মানব’ বলা হয়।

,

0 মন্তব্য(গুলি)

Write Down Your Responses

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...